Ramadan 2019 How To Travel Without Sickness

Ramadan 2019 How To Travel Without Sickness

Ramadan is the holy month of muslim they observe this holy month by fasting most of the people who didn’t get fasting in Ramadan because their income by traveling that's why they felling sick and this is the main reason they didn’t fasting in ramadan so today we will share how to travel without sickness in ramadan
Ramadan 2019 How To Travel Without Sickness
Ramadan 2019 How To Travel Without Sickness
Ramadn এ দুর্বলতা কারণ
সেহরি খাওয়ার পর সারাদিন না খেলে এমনিতেই শরীররে দুর্বলতা চলে আসে তবে যারা রোজা রেখে অবস্থ তাদের কে দুর্বলতা কাবু করতে পারে না তা ছাড়া রোজা রেখে ভ্রমণ করা টা অনেকের কাছেই কষ্ট সাধ্যে কিন্তু এমন অনেক লোক আছে যাদের ভ্রমণ ছাড়া অন্য কোন উপায় নেই হতে পারে সেটা ব্যাক্তিগত কাজে কিংবা উপার্জন করার উদ্দেশ্যে তাই যখন তারা ভ্রমণের উদ্দেশ্যে বের হয় তখন তারা রোজা অবস্থায় শরীরে পানির ও খাবারের পরিমান কম থাকায় দুর্বলতা দেখা দেয়। 
Ramadan এ কিভাবে দুর্বলতা ছাড়া ভ্রমণ করা যায়
রমজানে রোজা রেখে ভ্রমণ আসলেই কষ্ট সাধ্যের ব্যাপার তাই নিম্নের কিছু উপায় মেনে চললে দুর্বলতা ছাড়াই সতেজ থেকে ভ্রমণ সম্ভপ

১.অল্প কথা বলা:-
কথা বলার জন্য অবশ্যই শক্তি প্রয়োজন রোজা রেখে অহেতুক ও অযথা কথা কে এরিয়ে চলুন কেউ আপনার সাথে অহেতুক কথা বার্তা শুরু করলে তাকে বলুন ভাই আমি রোজাদার এর বেশি আর কিছু বলার প্রয়োজন নেই এভাবে অতিরিক্ত কথা বলতে হবে না এবং শক্তি ও খরচ হবে না।

২.অপ্রয়োজনীয় জিনিস বহন না করা:-
অনেক লোক আছে যারা ভ্রমণে অনকে বেশি জিনিসপত্র শখের বসে বহন করে সত্যি বলতে রোজা না রাখলে তাতে কোন সমস্যা নেই কিন্তু রোজা রেখে অতিরিক্ত জিনিস বহন না করাই ভাল এতে যেমন শক্তির নষ্ট হয় এবং এর কারনে দুর্বলতা দেখা দেয় তাই ভ্রমণে যে জিনিস বেশি প্রয়োজন না সে সকল জিনিস বহন না করাই ভাল।

৩.বিচলিত না হওয়া:-
ভ্রমণের পূর্বে কিছু মানুষ বেশি বিচলিত হয়ে পরে এতে করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ অসম্পূর্ণ থেকে যায় যখন সেই কাজের কথা মনে পরে তখন আর কিছুই করার থাকে না তখন অতিরিক্ত টেনশন হয় যার কারনে শরীর দুর্বল হয়ে পরে যা একজন রোজাদার এরজন্য খুবই খারাপ তাই ভ্রমনের পূর্বে বিচলিত না হয়ে ধীরে সুস্থে কাজ করা         

৪.প্রয়োজনীয় জিনিস সাথে রাখা:-
রোজাদার ব্যাক্তির অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় জিনিস থাকে যা তার সাথে থাকা খুবই তাই ধরে নেওয়া যাক মেসওয়াক (ব্রাশ বলা যায়) অনেকে আছে মেশওয়াক না করলে মুখের গন্ধে অসস্থি বোধ করে এবং বমি বমি ভাব হয় এর কারনেও দূর্বল লাগে তাই অবশ্যই প্রয়োজনীয় জিনিস সাথে রাখুন।

৫.সঠিক যানবাহন নির্বাচন:- 
রোজাদার ব্যাক্তি ভ্রমণের ক্ষেত্রে যানবাহন নির্বাচনে খুবই গুরুত্ব দিতে হবে কারণ নিম্ন মানের যানবাহন নির্বাচন কারণে অস্থিকর পরিবেশে পরতে হয় যার কারনে সবচেয়ে বেশি বমি হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি আর একজন রোজাদার ব্যাক্তির বমি হলে শরীর দূর্বল লাগবে এটাই স্বাভাবিক তাই রোজার সময় ভ্রমণে যানবাহন নির্বাচন এ গুরুত্বদিন।

(আমাদের আর নতুন নতুন পোস্ট গুলো পেতে 🔔 বাটনে ক্লিক করে allow করে দিন ভাল লাগলে নিচের শেয়ার বাটনে ক্লিক করে শেয়ার করে দিন)                     

Post a Comment

0 Comments